বৃহস্পতিবার, ১৬ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
১লা অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
১৩ই সফর, ১৪৪২ হিজরি
ads

বাঞ্ছারামপুরের স্বাস্থ্য কর্মকর্তা স্ত্রীর সঙ্গে দেখা করতে সরকারি গাড়িতে করে গেলেন কক্সবাজার!

বাঞ্ছারামপুর ( ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধি: করোনার এই সময়ে সরকারি কর্মকর্তাদের ছুটি বন্ধ থাকলে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা সরকারি গাড়ি ব্যবহার করে স্ত্রীর সঙ্গে দেখা করতে কক্সবাজার বেড়াতে গেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। করোনায় এই সময়ে উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগের প্রধান কর্মকর্তার কর্মস্থলে অনুপস্থিত থাকায় বিষয়টি নিয়ে এলাকার সাধারণ মানুষের মাঝে মিশ্র প্রতিক্রিয় সৃষ্টি হয়েছে।
উপজেলা স্বাস্থ্য কমপেক্স সূত্রে জানা গেছে, উপজেলা এপর্যন্ত ৬ জন আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছেন। তবে তারা সবাই সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গেছেন। উপজেলায় এখন পর্যন্ত করোনার পরীক্ষার জন্য২৮৬জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে।
স্থানীয়রা জানান, ঢাকা ও নারায়ণগঞ্জের পার্শ্ববর্তী হওয়ার কারণেই প্রতিদিন সেখানকার লোকজন এলাকায় আসছেন। ঝুঁকির মধ্যে রয়েছেন উপজেলা। কোনো বিষয়ে চিকিৎসার জন্য উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তাকে ফোন করলেও তিনি ধরেন না। করোনার এই সময়ে সরকারের কাজে ব্যবহার করা গাড়ি নিয়ে তিনি কক্সবাজার গেছেন। করোনার কারণে আড়াই মাস ধরে স্ত্রীর সঙ্গে ওই চিকিৎসক দেখা করতে পারছেন না। তাই অসুস্থতার বিষয়টি দেখিয়ে তিনি কক্সবাজারে উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়েছেন।
উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা শরিফুল ইসলাম  জানান, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আল মামুন স্যার হোমকোয়ারেন্টিনে আছেন। রোবাবর দুপুরে তার নমুনা সংগ্রহ করা হয়।  সরকারি গাড়ি নিয়ে তিনি কক্সবাজারে স্ত্রীর সঙ্গে দেখা করতে গিয়েছেন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, বিষয়টি আমি বলতে পারব না। তবে স্যারের পরিবার কক্সবাজারে থাকেন। নমুনার ফল আসা পর্যন্ত আজ থেকে কোয়ারেন্টিনে থাকবেন বলে তিনি জানিয়েছেন। যদি নমুনার ফল পজেটিভ আসে তাহলে তিনি নিজ বাড়িতে আইসোলেশনে থাকবেন।
একাধিকবার চেষ্টা করলেও মুঠোফােন না ধরায় বাঞ্ছারামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আল মামুনের সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ সরোয়ার জানান, জেলা সিভিল সার্জনের কাছ থেকে ছুটি নিয়ে তিনি কক্সবাজার যাচ্ছেন বলে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আল মামুন আমাকে জানিয়েছেন। তবে সরকারি গাড়ি ব্যবহার করে এভাবে যাওয়ার কথা না। বিষয়টি আমি খোঁজ নেব।
ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সিভিল সার্জন মোহাম্মদ একরাম উল্লাহ বলেন, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তার স্ত্রী কক্সবাজারে থাকেন। স্ত্রী অসুস্থ থাকায় তিনি ছুটি নিয়ে সোমবার দুপুরে কক্সবাজারে গিয়েছেন। স্ত্রীকে দেখেই তিনি চলে আসবেন বলে জানিয়েছেন। স্ত্রী অসুস্থ থাকলে তো ছুটি নিয়ে যেতেই পারেন। ব্যক্তিগত কাজে সরকারি গাড়ি ব্যবহার প্রসঙ্গে তিনি বলেন, সরকারি কর্মকর্তাই ব্যক্তিগত কাজে সরকারি গাড়ি ব্যবহার করে পারেন না। তবে স্ত্রীর অসুস্থতার দিক বিবেচনা করে তিনি দুই-তিন দিনের মধ্যে চলে আসবেন।
Share with Others

শেয়ার করুন:

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on pinterest
Share on whatsapp
Share on email
Share on print

আরও পড়ুন:

বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস

বাংলাদেশে

আক্রান্ত
১৭৮,৪৪৩
সুস্থ
৮৬,৪০৬
মৃত্যু
২,২৭৫

বিশ্বে

আক্রান্ত
৩৪,২১১,৩০৮
সুস্থ
২৫,৪৬০,৬১১
মৃত্যু
১,০১৯,৬৪৫

আর্কাইভ