শুক্রবার, ২৬শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
১০ই জুলাই, ২০২০ ইং
১৭ই জিলক্বদ, ১৪৪১ হিজরী
ads

আত্মহত্যা করতে চেয়েছিলেন ক্রিকেটার আশরাফুল

দেশটুডে২৪ ডেস্কঃ মানসিক চাপের কারণে এক সময় আত্মহত্যা করতে চেয়েছিলেন বলে জানালেন বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক মোহাম্মদ আশরাফুল। ক্রীড়া সাংবাদিক নোমান মোহাম্মদের ‘নট আউট নোমান’ অনুষ্ঠানে আশরাফুল তার জীবনের এ অজানা কাহিনী তুলে ধরেন।

আশরাফুল বলেন, ‘একজন আমাকে বলছিলেন, এখন করোনার ভেতরে আমরা সবাই ঘরবন্দী। আপনার কেমন লাগছে? আমি বললাম আমার খুব আহামরি খারাপ লাগছে না। তিনি একটু অবাক হয়ে জানতে চাইলেন, বলেন কি এমন অস্বাভাবিক অবস্থার চেয়ে খারাপ আর কি হতে পারে? এতেও আপনার খুব খারাপ লাগছে না? আমি বললাম- ভাইরে, আমি আমার জীবনে করোনার চেয়েও কঠিন সময় কাটিয়েছি।’
‘যখন ম্যাচ গড়াপেটায় অভিযুক্ত হয়ে আমাকে নিষিদ্ধ করা হলো, আমি নিজে ম্যাচ ও স্পট ফিক্সিং করার কথা স্বীকার করে দোষী সাব্যস্ত হয়ে তিন বছরের জন্য নিষিদ্ধ হলাম, তখনকার অবস্থা ছিল এর চেয়ে খারাপ’-যোগ করেন আশরাফুল।

তিনি আরও বলেন, ‘এখনো মনে আছে কি মানসিক উৎপীড়ন ছিল সেটা। সবাই জানছে আমি অপরাধ করেছি। অন্যায় কাজ করেছি। ম্যাচ পাতিয়েছি। খুব স্বাভাবিকভাবেই আমি তখন সবার চোখে অপরাধী। সবাই বাঁকা চোখে দেখতে শুরু করলো। অনেক কাছের মানুষও দূরে সরে গেলেন। প্রিয়জনদের কেউ কেউ মুখ ফিরিয়ে নিলেন। আমার প্রতিনিয়ত মনে হতো এরকম একটা অবস্থায় আমি কি করে বেঁচে থাকবো? আমি কি করে জনসম্মুখে মুখ দেখাবো? আমার পরিবারের কাছে কি বলবো? তাদের কি অবস্থা হবে? সামাজিকভাবে আমি ও আমার পরিবার যে হেয় প্রতিপন্ন হবে, এটা ঢাকবো কি করে?’

এত সব চাপ মাথায় নিতে পারছিলেন না আশরাফুল। বাংলাদেশের ক্রিকেটের প্রথম আন্তর্জাতিক সুপারস্টার বলেন, ‘তখন এক সময় আমার মনে হয়েছিল এ জীবন আর রেখে কি লাভ, তার চেয়ে বরং আত্মহত্যা করি। তারপর আমি হজে যাই। হজে গিয়ে আমার মন মানসিকতা পরিবর্তন ঘটে।’
উল্লেখ্য ২০১৩ সালে শেষবারের মতো জাতীয় দলের হয়ে খেলেছিলেন আশরাফুল। তিনি ৬১ টেস্ট, ১৭৭ ওয়ানডে এবং ২৩টি আন্তর্জাতিক টি-২০ ম্যাচে বাংলাদেশের হয়ে খেলেছেন।

শেয়ার করুন:

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on pinterest
Share on whatsapp
Share on email
Share on print

আরও পড়ুন:

বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস

বাংলাদেশে

আক্রান্ত
১৭৫,৪৯৪
সুস্থ
৮০,৮৩৮
মৃত্যু
২,২৩৮

বিশ্বে

আক্রান্ত
১২,৩১৫,৫৩০
সুস্থ
৭,১৫৬,৬৫১
মৃত্যু
৫৫৪,৯৫৫

আর্কাইভ