সোমবার, ২২শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
৬ই জুলাই, ২০২০ ইং
১৩ই জিলক্বদ, ১৪৪১ হিজরী
ads

করোনা ভাইরাসের প্রভাব পড়েনি হোমনায়, ডাব খাওয়ার কে কেন্দ্র করে ২ জনকে কুপিয়ে জখম

মো.নাছির উদ্দিন-হোমনা-কুমিল্লা-প্রতিনিধি:

নোভেল করোনা ভাইরাসের প্রভাবে সারা বিশ্ব যখন লকডাউনে সেই সময় এর প্রভাব পড়েনি কুমিল্লার হোমনায়। ডাব খাওয়ার ঘটনাকে কেন্দ্র করে মনির হোসেন ও মাইনুল হোসেন নামের ২ জন আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

গতকাল শনিবার সন্ধ্যায় হোমনা উপজেলার চন্ডিপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। আহতদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

এলাকাবাসি সূত্রে জানাগেছে, গত শুত্রবার দুপুরে দুলালপুর ইউনিয়নের চন্ডিপুর গ্রামের মৃত মালু মিয়ার ছেলে ইদ্রিস আলী তার গাছ থেকে ডাব পাড়ার সময় একই গ্রামের খোরশেদ মিয়ার ছেলে কামাল হোসেন ওরফে টাডি কামাল একটি ডাব চায়। কিন্ত পূর্বের কোন কারনে তাকে ডাব দিতে অস্বীকার করে। এ নিয়ে ইদ্রিস আলীর পালক পুত্র ও কামালের মধ্যে বাকবিতন্ডার এক পর্যায়ে কামাল হোসেন লাঞ্চিত হয়। এ ঘটনা ইউপি চেয়ারম্যান জসিম উদ্দিন সওদাগরকে জানালে এর সঠিক বিচার করার কথা বলে উভয় পক্ষকে শান্ত থাকতে বলেন।
কিন্ত শনিবার বিকালে ভিটিকালমিনা ও দুলাল গ্রামের কিছু ছেলে টাডি কামালের বাড়িতে যাইতে চাইলে ইদ্রিস আলীর পক্ষের লোকজন এদের উপর চড়াও হয়। এ নিয়ে উভয় পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করলে। ইউপি চেয়ারম্যান ঘটনা স্থলে উপস্থিত হয়ে সঠিক বিচারের আশ্বাস দেন। পরবর্তীতে সন্ধ্যায় ভিটিকালমিনার একদল যুবক চন্ডিপুর গ্রামে হামলা চালিয়ে ইদ্রিস আলীকে না পেয়ে দুই জনকে কুপিয়ে আহত করে। আহতরা হলো চন্ডিপুর গ্রামের মৃত কালা মিয়ার ছেলে মনির হোসেন(৪৫) ও হযরত আলীর ছেলে মাইনুল হোসেন ৫৪)। তাদেরকে হোমনা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

এ বিষয়ে কামাল হোসেন ওরফে টাডি কামাল মুঠো ফোনে জানান, আমি যুবলীগের একজন সক্রিয় কর্মী। ইদ্রিস আলী ও তার ছেলে বিএনপির কর্মী। বিভিন্ন বিষয়ে আমার শত্রুতা করে আসছে। আমি ডাব খাইতে চাইলে আমাকে অপমান করে অকথ্য ভাষায় গালাগাল করে এবং তার পালক পুত্র আমাকে অকথ্য ভাষায় গালাগাল করে এবং লাঞ্ছিত করে। এ খবর শুনে ভিটিকালমিনা ও দুলালপুরের কিছু যুবলীগের বন্ধু আমার বাড়িতে আসলে ইদ্রিস আলী লোকজন নিয়ে আমার বন্ধুদের মারধর করে। চেয়ারম্যানের বিচারের আশ্বাসে তারা বাড়ি চলে যায়।

তবে এ বিষয়ে ইদ্রিস আলী বলেন, টাডি কামাল যুবলীগের নাম ভাঙ্গিয়ে নিরিহ মানুষকে হয়রানি করে। তাকে ডাব দিতে অস্বীকার করায় আমার সাথে খারাপ আচরন করে এবং আমার ছেলে কে দেখে নেয়ার হুমকি দেয়।

ইউপি চেয়ারম্যান জসিম উদ্দিন সওদাগর বলেন, তুচ্ছ ঘটনা যাতে বড় আকার ধারন করতে পারে সেই জন্য আমি নিজে এর বিচার করার কথা বলেছিলাম। কিন্ত আমার গ্রামের কিছু উশৃঙ্খল ছেলে এ ঘটনা ঘটিয়েছে। উভয় পক্ষের অভিভাবকদের সাথে কথা বলে মিমাংশা করার চেষ্টা করছি।

ওসি মো.আবুল কায়েস আকন্দ জানান, ঘটনা শুনেছি। কিন্ত কোন অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে ।

জানাগেছে পূর্বশত্রুতার জেরে মাইজচর শোভারামপুর গ্রামের দুই গ্রুপে মারামারি ৫ জন আহত, এবং নারী সংক্রান্ত ঘটনায় মাইকিং করে মিরাশ ও ইটাভরা গ্রামের মধ্যে সংঘর্ষে অন্তত ২০ জন আহত।

শেয়ার করুন:

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on pinterest
Share on whatsapp
Share on email
Share on print

আরও পড়ুন:

বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস

বাংলাদেশে

আক্রান্ত
১৬২,৪১৭
সুস্থ
৭২,৬২৫
মৃত্যু
২,০৫২

বিশ্বে

আক্রান্ত
১১,৫৩৬,৩০২
সুস্থ
৬,৫২৫,৭৬৫
মৃত্যু
৫৩৬,৩০৯

আর্কাইভ