মঙ্গলবার, ৩০শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
১৪ই জুলাই, ২০২০ ইং
২২শে জিলক্বদ, ১৪৪১ হিজরী
ads

করোনায় সতর্কতা ও পরামর্শ দিলেন বাঞ্ছারামপুর প্রবাসী স্বেচ্ছাসেবকলীগ

কাজী খলিলুর রহমান: করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারনে দেশের সকল অফিস আদলত ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে যাওয়ায় কর্মহীন হয়ে পড়েছে খেটে খাওয়া নিম্ন আয়ের লোকজন। এবং প্রতিনিয়ত আক্রানের পাশাপাশি মৃত্যুর সংখ্যা ও ক্রমাগত বৃদ্ধি পাচ্ছে। তারই ধারাবাহিকতায় দেশবাসীকে সতর্কতা ও পরামর্শ দিলেন বাঞ্ছারামপুর প্রবাসী স্বেচ্ছাসেবকলীগ।

এস.এম বুলবুল, বাঞ্ছারামপুর প্রবাসী স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি বলেন: করোনাভাইরাস বিশ্বব্যাপী প্রলয় সৃষ্টি করেছে! এটা দেখে ভয় পেলে চলবে না। সরকারি সকল বিধিনিষেধ মেনে চলুন ও সতর্ক থাকুন এবং ঘরে থাকুন। এটা শুধু আমাদের দেশে নয় সারাবিশ্বেই ঝড় বয়ে যাচ্ছে। তিনি আরোও বলেন, বাঞ্ছারামপুরবাসীর অবিসংবাদিত নেতা ক্যাপ্টেন এবি তাজুল ইসলাম এমপি মহোদয় বাঞ্ছারামপুরের ১২৮টি গ্রামে প্রত্যেক ঘরে ঘরে গিয়ে খোঁজ-খবর রাখছেন এবং করোনায় কর্মহীন ও অসহায় পরিবারকে খাদ্যসামগ্রী উপহার দিচ্ছেন। তিনি আরোও বলেন, ঘরে থাকি, নিজে সুস্থ থাকি, পরিবারকে সুস্থ রাখি।
জয় বাংলা
জয় বঙ্গবন্ধু।

মনির হোসেন মনির, বাঞ্ছারামপুর উপজেলা প্রবাসী স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন: সরকারি সামাজিক সুরক্ষা কর্মসূচি অব্যাহত রাখতে হবে। এই করোনার কারণে যাদের কাজ নেই সবাই যার যার অবস্থান থেকে তাদের পাশে দাঁড়াই হবে। তিনি আরোও বলেন, আমরা এমন একজন রাজনৈতিক অভিভাবক পেয়েছি যিনি সার্বক্ষণিক বাঞ্ছারামপুরবাসীর খোঁজ-খবর রাখতেছেন এবং কর্মহীন ও অসহায় পরিবারকে নিজস্ব অর্থায়নে ত্রাণ সামগ্রী উপহার দিচ্ছেন। আমরা ঘরে থাকি, সুস্থ থাকি, পরিবারকে সুস্থ রাখি।
জয় বাংলা
জয় বঙ্গবন্ধু।

আব্দুল্লাহ্-আল মামুন, বাঞ্ছারামপুর প্রবাসী স্বেচ্ছাসেবকলীগের যুগ্ন-সাধারণ সম্পাদক বলেন: করোনাভাইরাসকে প্রতিরোধ করতে হলে সকলে দুরুত্ব বজায় রেখে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করতে হবে’ এর কোনো বিকল্প নেই। সরকার যে সতর্কবাণী দিয়েছে এই সতর্কতা মেনে চলুন। তাহলে অনেক জীবন রক্ষা পাবে। এবং ঘরে থাকুন, সুস্থ থাকুন, পরিবারকে সুস্থ রাখুন।
জয় বাংলা,
জয় বঙ্গবন্ধু।

মিজানুর রহমান, বাঞ্ছারামপুর প্রবাসী স্বেচ্ছাসেবকলীগের সহ-সভাপতি বলেন: করোনাভাইরাসে এখন বিশ্বব্যাপী মহামারিতে রুপ নিয়েছে, উন্নত দেশও করোনাভাইরাস মোকাবিলায় হিমশিম খাচ্ছে। বাঙালিরাও অনেক জায়গায় মৃত্যুবরণ করছে। যারা মৃত্যুবরণ করেছেন, আমি তাদের সবার আত্মার মাগফিরাত কামনা করছি। এখন পর্যন্ত বাংলাদেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে যারা মারা গেছেন তারা বেশিরভাগই বয়স্ক, শারীরিকভাবে দুর্বল ছিলেন’ তাদের অন্যান্য জটিলতা ছিল। আপনারা প্রত্যেকে সরকারি আইন মেনে চলুন, নিজে সুস্থ থাকুন পরিবারকে সুস্থ রাখুন।
জয় বাংলা,
জয় বঙ্গবন্ধু।

শেয়ার করুন:

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on pinterest
Share on whatsapp
Share on email
Share on print

আরও পড়ুন:

বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস

বাংলাদেশে

আক্রান্ত
১৭৮,৪৪৩
সুস্থ
৮৬,৪০৬
মৃত্যু
২,২৭৫

বিশ্বে

আক্রান্ত
১৩,২৬৭,২২৬
সুস্থ
৭,৭৩২,৯৭৪
মৃত্যু
৫৭৬,৩১৬

আর্কাইভ