শনিবার, ২০শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
৪ঠা জুলাই, ২০২০ ইং
১১ই জিলক্বদ, ১৪৪১ হিজরী
ads

ক্যান্সারের কারণ ও প্রতিকার

দেশটুডে২৪ নিউজ: রক্তরোগ সাধারণত দুই ধরনের হয়ে থাকে। এক দলকে বলা হয় ক্যান্সার। শিশু ও বয়স্ক মানুষের ক্যান্সার হয়। আরেকটি দল রয়েছে যেটি সাধারণত ক্যান্সারে পরিণত হয় না। একে সাধারণত বিনাইন দল বলে থাকি। এখানে জন্মগত রোগ, থ্যালাসেমিয়া এগুলো থাকে। তবে এটি সবসময় কম ক্ষতিকর নয়।

এখন ক্যান্সারের চিকিৎসা এসেছে। রোগী ভালোও হয়ে যায়। তবে কিছু বিনাইন রোগ রয়েছে, যেগুলো সবসময় বহন করতে হয়। জন্মগত অসুখ যেমন থ্যালাসেমিয়া বা হিমোফিলিয়া এর উদাহরণ। কোনো কারণে রক্ত যদি নিজেই

ভেঙে যায় তখন অটোইমিউন, হেমোলাইটিক অ্যানিমিয়া হতে পারে। যেখানে গুরুতর রোগীদের বাঁচানো খুবই কঠিন। সাধারণত অস্থিমজ্জা প্রতিস্থাপন বা স্টেমসেল ট্রান্সপ্লানটেশন না করলে বেশিরভাগ রক্তরোগের রোগীকে বাঁচানো সত্যিই কঠিন হয়ে পড়ে। আর রক্তের ক্যান্সারেরও কিছু রোগী আছে, যারা ওষুধ বা চিকিৎসায় ভালো হয়। কিছু বিষয়ের জন্য অস্থিমজ্জা প্রতিস্থাপন অপরিহার্য।

ক্যান্সারের অনেক নতুন ও আধুনিক চিকিৎসা আমাদের দেশে চলে এসেছে। যাকে আমরা টারগেটেট থেরাপি বলি। তবে দুঃখজনক হলেও আমাদের দেশে কিছু উন্নত বিষয় অপ্রতুল। সে ক্ষেত্রে কিছু চিকিৎসা দেওয়া হয়। স্টেমসেল ট্রান্সপ্লানটেশন প্রয়োজন হলে তা করতে হবে। এছাড়া সাধারণ ওষুধ নির্ভরশীল কেমোথেরাপি দেওয়া যেতে পারে। সর্বশেষ পর্যায়ে রোগীদের প্যালিয়েটিভ থেরাপি দেওয়া হয়। এ পদ্ধতিগুলো আমাদের দেশে সহজলভ্য। তবে শুরুতেই এ রোগ শনাক্ত করা গেলে চিকিৎসার মাধ্যমে রোগীকে সুস্থ করে তোলা সম্ভব। তাই শুরুতেই বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের শরণাপন্ন হোন, ভালো থাকুন।

লেখক: অধ্যাপক ও বিভাগীয় প্রধান, রেডিয়েশন অনকোলজি, এনাম মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল

শেয়ার করুন:

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on pinterest
Share on whatsapp
Share on email
Share on print

আরও পড়ুন:

বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস

বাংলাদেশে

আক্রান্ত
১৫৬,৩৯১
সুস্থ
৬৮,০৪৮
মৃত্যু
১,৯৬৮

বিশ্বে

আক্রান্ত
১১,০৯১,৪৪৮
সুস্থ
৬,২১২,৬৬১
মৃত্যু
৫২৬,৪৪৫

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০৩১